RSS

Category Archives: শাপলা

শাপলা লতার ভর্তা

উপকরণ : শাপলা লতা কেটে বেছে নেওয়া ৩০০ গ্রাম, খোসা ছাড়ানো মাঝারি চিংড়ি ২টি, কোরানো নারকেল সিকি কাপ, রসুন ৬ কোয়া, দেশি পেঁয়াজ ৩টি চার টুকরা করা, শুকনা মরিচ ৬টি, লবণ ১ চা-চামচ, চিনি ১ চা-চামচ, লেবুর রস ১ টেবিল চামচ, সরিষার তেল ২ টেবিল চামচ।

প্রণালি : শাপলা লতা ভাপ দিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। ঠান্ডা হলে হাত দিয়ে চিপে বাড়তি পানি নিংড়ে নিয়ে একটি পাত্রে রাখুন। ফ্রাইপ্যানে এক টেবিল চামচ সরিষার তেল গরম করে শুকনা মরিচ টেলে উঠিয়ে রাখুন। এবার তাতে চিংড়ি মাছ, কোরানো নারকেল ও আধা চা-চামচ লবণ দিয়ে ভালো করে ভাজা ভাজা করে উঠিয়ে রাখুন। এবার বাকি এক টেবিল চামচ তেল গরম করে তাতে পেঁয়াজ ও রসুন ভেজে নিন। কিছুক্ষণ ভাজার পর শাপলা লতা ও বাকি লবণ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে ভাজা ভাজা করুন। বাড়তি পানি টেনে গেলে চিংড়ি মাছ ও নারকেল কোরা দিয়ে কিছুক্ষণ ভাজুন। তারপর শুকনা মরিচ, চিনি এবং লেবুর রস দিয়ে কিছুক্ষণ ভাজা ভাজা করে নামান। পাটায় মসৃণ করে বেটে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

পরামর্শ : শাপলা লতা কুটে বেছে নিতে নিতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা লালচে কালো আবরণ পড়ে যায়। ফুটানো পানিতে দিয়ে ভাপিয়ে নিলে সেটা আবার টাটকা সবুজ রং ধারণ করবে। যেহেতু এটা পানিতে জন্মায়, তাই এর সেই নিজস্ব একটা মেটে গন্ধ আছে, ভাপিয়ে পানিটা নিংড়ে নিলে সেই গন্ধটাও দূর হয়ে যায়।

শাপলা লতার ভর্তারেসিপিটি প্রকাশিত হয় ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩
PALO

Advertisements
 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন নভেম্বর 10, 2013 in ভর্তা, শাকসবজি, শাপলা

 

চিংড়ি-শাপলা লতার চচ্চড়ি

উপকরণ : শাপলা লতা ৩৫০ গ্রাম বা এক আঁটি , মাঝারি চিংড়ি ৫টি, কোরানো নারকেল আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, সয়াবিন তেল আধা কাপ, চেরা কাঁচা মরিচ ৪টি, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, লাল মরিচের গুঁড়া ১ চা-চামচ, আদা বাটা আধা চা-চামচ, রসুন বাটা ১ চা-চামচ, টমেটো বাটা সিকি কাপ, লবণ আধা চা-চামচ, চিনি ১ চা-চামচ অথবা স্বাদ অনুযায়ী।

প্রণালি : শাপলা লতা বেছে দেড় ইঞ্চি লম্বা করে কেটে ধুয়ে চুলায় ফুটন্ত পানিতে ছেড়ে দিন। দু-একবার ফুটে উঠলে নামিয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। পরিষ্কার করা চিংড়ি মাছগুলো সিকি চা-চামচ হলুদ ও সিকি চা-চামচ লবণ দিয়ে মেখে কড়াইয়ে তেল গরম করে ভেজে উঠিয়ে রাখুন। একই তেলে পেঁয়াজ কুচি দিয়ে ভেজে নিন। সিকি চা-চামচ লবণ দিয়ে আরও কিছুক্ষণ নেড়ে আদা-রসুন বাটা, হলুদ-মরিচের গুঁড়া, চিনি এবং সামান্য পানি দিয়ে কষিয়ে নিন। এবার টমেটো বাটা দিয়ে আরও কিছুক্ষণ ভালো করে কষিয়ে নিন। মসলা কষানো হয়ে গেলে শাপলা ও চিংড়ি মাছগুলো দিয়ে নাড়ুন। এবার কোরানো নারকেল, বাকি সিকি লবণ এবং কাঁচা মরিচ দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নেড়ে আঁচ কমিয়ে ঢেকে দিন। কিছুক্ষণ পর ঢাকনা খুলে আরেকবার নেড়ে পুনরায় ঢেকে দিন। পানি টেনে মাখা মাখা হলে নামিয়ে গরম ভাত বা রুটির সঙ্গে পরিবেশন করুন।

পরামর্শ : শাপলা লতা কুটে বেছে নিতে নিতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা লালচে কালো আবরণ পড়ে যায়। ফুটানো পানিতে দিয়ে ভাপিয়ে নিলে সেটা আবার টাটকা সবুজ রং ধারণ করবে। যেহেতু এটা পানিতে জন্মায়, তাই এর সেই নিজস্ব একটা মেটে গন্ধ আছে, ভাপিয়ে পানিটা নিংড়ে নিলে সেই গন্ধটাও দূর হয়ে যায়।

চিংড়ি-শাপলা লতার চচ্চড়িরেসিপিটি প্রকাশিত হয় ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩
PALO

 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন সেপ্টেম্বর 30, 2013 in চিংড়ি, শাকসবজি, শাপলা

 

শাপলা লতার ভাজি

উপকরণ : শাপলা লতা ৩০০ গ্রাম বা এক আঁটি, সয়াবিন তেল সিকি কাপ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, রসুন কুচি (বড়) ১টি, চেরা কাঁচা মরিচ ৫টি, ফিশ সস ৩ চা-চামচ, লবণ আধা চা-চামচ।

প্রণালি : শাপলা লতা বেছে কুচি করে কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। চুলায় ফোটানো গরম পানিতে শাপলা লতা কুচি ছেড়ে দিন। দু-এক মিনিট পর ঝাঁঝরিতে ঢেলে পানি ঝরিয়ে নিন।
কড়াইয়ে তেল গরম করে পেঁয়াজ ও রসুন কুচি দিয়ে ভাজতে থাকুন। বাদামি রং ধরার আগেই তিনটি চেরা কাঁচা মরিচ দিয়ে ভাজুন। পেঁয়াজ ও রসুন বাদামি রং হয়ে আসার পর লবণ এবং শাপলা কুচি দিয়ে দিন। দুই-তিন মিনিট নেড়ে ফিশ সস এবং বাকি চেরা কাঁচা মরিচ দিয়ে দিন। ভালো করে নেড়ে ভাজা ভাজা হলে নামিয়ে গরম ভাতের সঙ্গে পরিবেশন করুন।

পরামর্শ : শাপলা লতা কুটে বেছে নিতে নিতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা লালচে কালো আবরণ পড়ে যায়। ফুটানো পানিতে দিয়ে ভাপিয়ে নিলে সেটা আবার টাটকা সবুজ রং ধারণ করবে। যেহেতু এটা পানিতে জন্মায়, তাই এর সেই নিজস্ব একটা মেটে গন্ধ আছে, ভাপিয়ে পানিটা নিংড়ে নিলে সেই গন্ধটাও দূর হয়ে যায়।

শাপলা লতার ভাজিরেসিপিটি প্রকাশিত হয় ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৩
PALO

 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন সেপ্টেম্বর 30, 2013 in শাকসবজি, শাপলা

 

নারকেলি শাপলা ফলি

উপকরণ: ফলি মাছ দুটি (বড়), নারকেল বাটা তিন টেবিল চামচ, আদা বাটা আধা চা-চামচ, হলুদ গুঁড়া আধা চা-চামচ, রসুন বাটা এক চা-চামচ, মরিচ গুঁড়া এক চা-চামচ, লবণ পরিমাণমতো, কাঁচামরিচ পাঁচ-ছয়টা, মেথি আধা চা-চামচ, সয়াবিন তেল সিকি কাপ, পেঁয়াজ কুচি দুই টেবিল-চামচ।

প্রণালি: মাছ টুকরা করে লবণ ও হলুদ মেখে ভেজে রাখতে হবে। শাপলা ভাপ দিয়ে রাখতে হবে। অন্য পাত্রে তেল দিয়ে মেথির ফোড়ন দিয়ে পেঁয়াজ ভাজতে হবে। পেঁয়াজ বাদামি হলে সব মসলা ও লবণ দিয়ে কষাতে হবে। নারকেল দিয়ে ভালোভাবে নাড়তে হবে। নারকেল ভাজা ভাজা হলে সিকি কাপ পানি দিয়ে কষাতে হবে। এতে নারকেলের ক্রিমটা বেরিয়ে আসবে। এবার এক কাপ গরম পানি দিয়ে শাপলা, কাঁচামরিচ ও মাছগুলো বিছিয়ে দিয়ে ঢাকনা দিতে হবে। মাঝারি আঁচে মাখা মাখা ঝোল রেখে নামাতে হবে।

পরামর্শ : শাপলা লতা কুটে বেছে নিতে নিতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা লালচে কালো আবরণ পড়ে যায়। ফুটানো পানিতে দিয়ে ভাপিয়ে নিলে সেটা আবার টাটকা সবুজ রং ধারণ করবে। যেহেতু এটা পানিতে জন্মায়, তাই এর সেই নিজস্ব একটা মেটে গন্ধ আছে, ভাপিয়ে পানিটা নিংড়ে নিলে সেই গন্ধটাও দূর হয়ে যায়।

রেসিপিটি প্রকাশিত হয় ২৭ জুলাই ২০১০

 
 

শাপলায় সরষে চিংড়ি

উপকরণ: শাপলা ১ আঁটি, সরষেবাটা ৩ টেবিল চামচ, টকদই ২ টেবিল চামচ, আদাবাটা ১ চা-চামচ, রসুনবাটা ১ চা-চামচ, জিরা ভাজা গুঁড়া ১ চা-চামচ, পোস্তবাটা ১ চা-চামচ, লবণ স্বাদমতো, সরিষার তেল আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, গোটা সরিষা ১ চা-চামচ।

প্রণালি: কড়াইতে তেল দিয়ে সরিষা ফোড়ন দিতে হবে। পেঁয়াজ কুচি দিয়ে লাল হলে সব মসলা দিয়ে কষিয়ে চিংড়ি দিয়ে একবার কষিয়ে, শাপলা দিয়ে কষিয়ে আস্তে আঁচে রান্না করতে হবে। পানি দেওয়া যাবে না, শাপলার পানিতে রান্না হবে।

পরামর্শ : শাপলা লতা কুটে বেছে নিতে নিতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে একটা লালচে কালো আবরণ পড়ে যায়। ফুটানো পানিতে দিয়ে ভাপিয়ে নিলে সেটা আবার টাটকা সবুজ রং ধারণ করবে। যেহেতু এটা পানিতে জন্মায়, তাই এর সেই নিজস্ব একটা মেটে গন্ধ আছে, ভাপিয়ে পানিটা নিংড়ে নিলে সেই গন্ধটাও দূর হয়ে যায়।

রেসিপিটি প্রকাশিত হয় ১৯ জুলাই ২০১১

 
মন্তব্য দিন

Posted by চালু করুন নভেম্বর 19, 2011 in চিংড়ি, শাপলা

 
 
%d bloggers like this: